বিছানাকান্দি: শীতল ঝর্নার স্পর্শে

share us:
0

রাজিয়া সুলতানা স্মৃতি :

ঘুরতে কে না ভালোবাসে ?  তবে কর্মজীবনে প্রবেশের পর খুব একটা সময় হয়না ভ্রমনের। যেটুকু সময় সুযোগ হয়, তাতে চেষ্টা করি একটু বের হয়ে মনকে সতেজ করতে। এবার ঈদের ছুটিতে আমারা হুট করেই সিদ্ধান্ত নিলাম ঘুরতে যাওয়ার। অনেক দিন ধরেই কয়েকজন সহকর্মীর পরিকল্পনা ছিলো সিলেটের বিছানাকান্দি যাবার। তবে সবার এক সাথে ছুটি না থাকায় তা আর সম্ভব হয়নি। তাই দুই সহকর্মী মিলে যাবার সিদ্ধান্ত হলো, সাথে যার যার পরিবার। অফিস শেষ করে সেদিন রাতের ট্রেনেই  রওনা দিলাম সিলেটের উদ্দেশ্যে। সকালে পৌছে হোটেলে উঠে ফ্রেশ হয়ে নাস্তা পর্ব সেরে নিলাম। তারপর গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা, মানে বিছানাকান্দি।

সিলেট শহর থেকে যাওয়া এবং আসার জন্যে আমরা দুই হাজার টাকায় একটা অটোভাড়া নিলাম। চালকের নাম ইব্রাহিম এক অটোতে বাচ্চা কাচ্চা নিয়ে আমরা সাতজন রওয়া দিলাম, সিলেট শহর পার হয়ে অটো ছুটে চলছে গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত বিছানাকান্দির উদ্দেশ্যে। সাধারনত যে রাস্তা দিয়ে যান চলাচল করে সে রাস্তা খারাপ হওয়ায় আমাদের অটো চল্লো অণ্য রাস্তা দিয়ে।  একটু বেশি সময় লাগলেও সেদিক দিয়ে মোটামটি ভালোই রাস্তা, তার পরেও আধা কি:মি: এর মতো খানা – খন্দক। মাঝপথে অটো চালক আমাদের অনেক দূরে সাদা মেঘের উপর ধূসর রংয়ের কিছু একটা দেখিয়ে বললো, ঐগুলো যা দেখা যাচ্ছে তা আসলে পাহাড়। শুনেতো অবাক, মেঘের এতো উপরে পাহাড় ? । ভালো করে দেখার জন্য অটো থামাতে বললাম।

ccnbdদুচোখ ভরে দৃশ্য উপভোগ করার চেষ্টায় আমরা যখন বিভোর,তখন ইব্রাহিম ভাই বললো আমরা তো সেখানেই যাব, মানে সেই পাহাড়ের কাছে, এটা শুনে তারাতারি উঠে পরলাম আবার। দূরের সেই পাহাড়গুলো আসলে ভারতের মেঘালয় রাজ্যে অবস্থিত। সন্ধ্যায় ঐ পাহাড়ের সৌন্দর্য বেড়ে যায় কয়েকগুন। পাহাড়ের গায়ে ছোট ছোট লাইট আর ছুটে চলা গাড়ি,সব মিলিয়ে অন্যরকম এক দৃশ্য। এভাবে আরো প্রায় বিশ, পচিঁশ মিনিট যাবার পর আমরা পৌছলাম হেদারপার বাজার নামকস্থানে। সেখান থেকে বিছানাকান্দি যেতে হবে ইঞ্জিন চালিত নৌকায়।

বিছানাকান্দি - ccnbd.org
বিছানাকান্দি – ccnbd.org

তবে মজার বিষয় হলো আমরা তখনো জানতামনা যে অটো থেকে নামার পর ট্রলারে আরো প্রায় এক ঘন্টার পথ পারি দিয়ে তারপর যেতে হবে গন্তব্যে ! শুনে প্রথমে একটু মেজাজ খারাপ হলেও কি আর করা ? এতদূর যেয়ে আর সামান্য একটুর জন্য তো গন্তব্য মিস করা যাবেনা । ইব্রাহিম ভাইকে বললাম তার পরিচিত কোন নৌকা থাকলে বলে দেবার জন্য। আমরা সেখান থেকে হালকা খাবার ও পানীয় সাথে নিয়ে নিলাম। নৌকা রেডি, ইব্রাহিম ভাইয়ের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে আমারা চললাম সেই পাহাড়ের কাছে মানে বিছানাকান্দিতে। পথে নদীর দুই পাশের মনোরম দৃশ্য উপভোগ করার সাথে সাথে চলছে সেলফি ও ছবি তোলার পর্ব।

বিছানাকান্দির পথে - ccnbd.org

যেতে যেতে কখনো মনে হচ্ছিল এইতো পাহাড়ের একেবারে কাছে চলে এসেছি, কিন্তু না নদীটা অনেকটাই আঁকা বাঁকা হওয়ায় এমনটা মনে হয় । প্রায় ঘন্টা খানেক নৌকা চলার পর আমরা পৌছলাম। পথে অনেক ইঞ্জিন চালিত নৌকা, কোনটায় ফিরছে পর্যটকরা আবার কোনটায় যাচ্ছে।

বিছানাকান্দির পথে - ccnbd.org
বিছানাকান্দির পথে – ccnbd.org

নৌকা থেকে নামার পর আমরা মেঘালয় রাজ্য থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঝর্নার স্রোতে এতটাই মুগ্ধ যে মুহূর্তেই সব ক্লান্তি কোথায় চলে গেল বুঝতেই পারলাম না।

বিছানাকান্দি - ccnbd.org
বিছানাকান্দি – ccnbd.org

প্রথমে ভেবেছিলাম শুধু পা ভেজাবো, কিন্তু তা কি আর সম্ভব এতো শীতল পানিতে শুধুকি পা ভেজালে চলে ? বাচ্চারাতো খুশিতে কি করছে তা বলা মুসকিল।bichana kandi - ccnbd

তবে সেখানে একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে তা হলো পিচ্ছিল পাথরে সাবধানে পা ফেলতে হবে। শীতল পানিতে ভিজে আর ছবি তুলে কতঘন্টা পার করেছি তা বলতে পারবোনা তবে ফিরতে হবে নৌকার লোক যখন তারা দিলো, তখন বুঝলাম আসলেও ফিরতে হবে। কি আর করা যান্ত্রিক জীবনের ক্লান্তিকে ধুয়ে মুছে কিছু মধুর স্মৃতি নিয়ে এবার ফোরার পালা।

বিছানাকান্দি- ccnbd.org
বিছানাকান্দি- ccnbd.org
লেখক: সিনিয়র নিউজ রুম এডিটর, মাইটিভি।

Editor

i am a journalist and children organza

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *